ডোমেইন কি? ডোমেইন কেনার আগে কোন বিষয় গুলো লক্ষ্য রাখবেন?

ব্লগিং এর আজকের পর্বে আমি আলোচনা করব ডোমেইন কি? এবং বাছাই করবেন এবং ডোমেইন কেনার আগে কোন কোন বিষয় সমূহ জেনে নেওয়া অত্যাবশ্যকীয়।

একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইটে ক্ষেত্রে ডোমেইন খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। একটি Domain এর মাধ্যমেই আপনার পূর্ণাঙ্গ ব্লগ বা ওয়েবসাইটের পরিচিতি পাওয়া যায়। আপনি চাইলেই যেকোনো একটি ডোমেইন নিয়েই আপনার ব্লগিং ক্যারিয়ার শুরু করতে পারেন। এবং ইউনিক একটি ডোমেইন খুঁজতে গিয়ে ব্যর্থ হয়ে আপনি নিজের নামেও Domain কিনে ফেলতে পারেন। এক্ষেত্রে আপাত দৃষ্টিতে কোনো সমস্যা না থাকলেও অদূর ভবিষ্যতে আপনার ব্লগিং ক্যারিয়ার মারাত্মক সমস্যার সম্মুখীন হতে পারে। তাহলে আসুন বিস্তারিত আলোচনা করা যাক এই ডোমেইন সম্পর্কে এবং ডোমেইন কেনার আগে কোন কোন বিষয় লক্ষ্য রাখবেন।

ডোমেইন সম্পর্কিত আজকের পর্বে রয়েছে:

ডোমেইন কি?

ডোমেইন হচ্ছে মূলত একটি ঠিকানা, অথবা বলতে পারেন একটি ডিজিটাল ঠিকানা। মনে করুন, আপনার কিছু দ্রব্য সামগ্রী ক্রয় করার প্রয়োজন পড়ল, তখন কেউ আপনাকে বললো নিউমার্কেটে যাও সব কিছু পেয়ে যাবে। এখন এই নিউমার্কেটের নিশ্চয়ই নির্দিষ্ট একটি ঠিকানা রয়েছে, আর আপনাকে সেই নির্দিষ্ট ঠিকানা অনুযায়ী নিউমার্কেটে পৌঁছাতে হবে। একইভাবে Domain হচ্ছে আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটের ঠিকানা। যে ঠিকানার মাধ্যমে ভিজিটর আপনার ওয়েবসাইটের সন্ধান পাবে।

আরো পরিষ্কারভাবে বলতে গেলে, মনে করুন আমাদের ওয়েবসাইটের ডোমেইন webangla.com, এখন আপনি আমাদের ওয়েবসাইটের Domain যেহেতু জানেন সেহেতু ব্রাউজারে গিয়ে আমাদের Domain নামটি লিখে সার্চ করলেই আমাদের ওয়েবসাইট পেয়ে যাচ্ছেন। এক্ষেত্রে আপনার কারো সাহায্যের বা অতিরিক্ত কোনো তথ্যের প্রয়োজন হচ্ছে না।

কিন্তু এটাতো গেল আমার আর আপনার মত মানুষের কথা। তাহলে কম্পিউটারের ক্ষেত্রেও কি বিষয়টা এমন? উত্তর – মোটেও নয়।

আপনি যেমন webangla.com এর মাধ্যমেই আমাদের ওয়েবসাইটটি পেয়ে যাচ্ছেন কম্পিউটারের ক্ষেত্রে বিষয়টি একটু আলাদা। কেননা কম্পিউটার একটি রোবট আর সে মানুষের মত ভাষা বুঝতে পারেনা। প্রত্যেকটি ওয়েবসাইটের নির্দিষ্ট একটি IP/আইপি এড্রেস রয়েছে যার মাধ্যমে কম্পিউটার বা অন্যান্য ডিজিটাল ডিভাইস গুলো উক্ত ওয়েবসাইটটিকে চিহ্নিত করে থাকে। IP/আইপি অ্যাড্রেস হলো অনেকগুলো সংখ্যার সমষ্টি। আর আপনি যখন একটি ডোমেইন নির্বাচন করবেন তখন স্বয়ংক্রিয়ভাবে একটি IP/আইপি অ্যাড্রেস এ আপনার ডোমেইনটি রেজিস্টার হয়ে যাবে। অতঃপর আপনি বা অন্য কোন ভিজিটর যখন উক্ত ডোমেইনের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটে এক্সেস নেবার চেষ্টা করবে তখন কম্পিউটার সার্ভার Domain এর সাথে সংযুক্ত IP/আইপি অ্যাড্রেসকে কানেক্ট করবে এবং আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটটি প্রদর্শিত হবে।

আরো পড়ুন
হোস্টিং কি? কত প্রকার? হোস্টিং কেনার আগে বিবেচ্য বিষয়।

ডোমেইন কত প্রকার?

অর্থাৎ এ পর্যন্ত আমরা জানলাম Domain হলো একটি ঠিকানা। এখন কথা বলা যাক বিভিন্ন প্রকার Domain সম্পর্কে।

Domain মূলত দুই প্রকার

  • Top Level Domain
  • Subdomain

Top Level Domain

Top Level Domain বিভিন্ন প্রকার হতে পারে যেমন webangla.com, webangla.net, webangla.org, webangla.top বা webangla.xyz আরো অনেক কিছু। এখানে webangla হচ্ছে ডোমেইন নেম এবং .com .net .org .top .xyz এগুলো হচ্ছে Domain এক্সটেনশন। আবার .com.bd .com.uk বা .com.us এগুলোকে বলা হয় Country Extension/কান্ট্রি এক্সটেনশন

Subdomain

সাবডোমেইন হচ্ছে একটি Domain এর মধ্যে আরেকটি ডোমেইন। আমরা যখন ফ্রিতে Blogger বা WordPress এ ব্লগ তৈরি করি তখন আমাদের ডোমেইনটি এমন থাকে webangla.blogspot.com বা webangla.wordpress.com। সুতরাং Blogspot এর একটি সাব-ডোমেইন হচ্ছে আমাদের webangla.blogspot.com ঠিক তেমনি ভাবেই ওয়ার্ডপ্রেসের ফ্রি ব্লগের ক্ষেত্রে webangla.wordpress.com হচ্ছে ওয়ার্ডপ্রেস এর একটি সাবডোমেইন। অর্থাৎ আমাদের ব্লগ বা ওয়েবসাইট উক্ত Blogspot বা WordPress এর আন্ডারে তৈরি করা হয়েছে। সুতরাং একটি Domain এরমধ্যে আর একটি Domain থাকাকে Sub Domain বলে।

আবার আপনারা অনেক সময় লক্ষ্য করে থাকবেন বিভিন্ন ব্লগের Domain যেমন blog.webangla.com। এটি হচ্ছে webangla.com এর আন্ডারে একটি সাবডোমেইন। অর্থাৎ আপনার নিজের ডোমেইন এর একটি সাবডোমেইন।

কিভাবে ডোমেইন নেম পছন্দ করবেন?

ব্লগস্পট সাবডোমেইন এর ক্ষেত্রে

প্রথমত আমরা যারা নতুন তাদের উচিত প্রথমে ব্লগারে ব্লগিং শুরু করা। কেননা নতুন অবস্থায় ওয়ার্ডপ্রেসে ব্লগিং করার অর্থ হল প্রাথমিক দিকে অর্থের অপচয় করা। কিন্তু আপনি যখন ব্লগিং সম্পর্কে মোটামুটি ধারণা অর্জন করবেন তখন ওয়ার্ডপ্রেসে মুভ করবেন। আরো একটি অপ্রিয় সত্য কথা এই যে, যদি ব্লগারের এক্সপেরিয়েন্স নিতে চান তাহলে ওয়ার্ডপ্রেস শুরু করার আগেই নিন কেননা একবার যখন আপনি ওয়ার্ডপ্রেসে মুভ করবেন আর কখনোই ব্লগারে ফিরে আসতে চাইবেন না।

এখন আসা যাক আসল কথায়, ব্লগার প্রাথমিকভাবে ফ্রিতে Sub Domain প্রোভাইড করে থাকে। আপনি ভাবতে পারেন ফ্রিতে যখন Sub Domain পাচ্ছি তখন যে-কোন একটি Domain নেম পছন্দ করলেই হবে। কিন্তু এমনটা ভাবা মোটেও ঠিক নয়। সাব ডোমেইন এর ক্ষেত্রেও এমন একটি নাম পছন্দ করুন যেই নামটি আপনি ভবিষ্যতে কিনতে পারবেন, অর্থাৎ যে নামটির টপ লেভেল Domain এভেলেবেল রয়েছে সাবডোমেইন এর ক্ষেত্রেও সেই নামটি পছন্দ করুন।

উদাহরণস্বরূপ বলতে গেলে, মনে করুন আপনার WeBangla নামটি পছন্দ হয়েছে, এবং Sub Domain নির্বাচনের ক্ষেত্রে দেখলেন webangla.blogspot.com available রয়েছে। এবং আপনি সাথে সাথে সেটি নিয়ে নিলেন কিন্তু পরবর্তীতে যখন আপনি টপ-লেভেল ডোমেইনে ট্রান্সফার হবেন তখন দেখতে পেলেন WeBangla ডোমেইনটি অলরেডি বিক্রি হয়ে গিয়েছে, সুতরাং এখন আপনাকে আবার নতুন করে Domain নেম পছন্দ করতে হবে, আর এতদিনে সাবডোমেইন এর মাধ্যমে যে পরিচিতি অর্জন করেছেন তা আর কোন কাজেই আসছে না। যার জন্য আবার নতুন করে নতুন Domain দিয়ে শুরু করতে হবে।

সুতরাং ব্লগারে Subdomain নির্বাচন করার ক্ষেত্রেও এমন নাম পছন্দ করুন যার টপ লেভেল ডোমেইন available রয়েছে।

Domain নেম পছন্দ করার জন্য আপনাকে কয়েকটি বিষয় ভাবতে হবে। এখন বলতে পারেন Domain নেম বাছাই করবো তার জন্য আবার ভাবার কি আছে? এমন যদি ধারনা হয়ে থাকে তাহলে বলে রাখি ভাই/বোন কপালে দুঃখ আছে। আমি নিজেও যখন প্রথম ব্লগিং শুরু করি তখন হুট করে নিজের পছন্দ মতো Domain নিয়ে নিয়েছিলাম। যার ফলশ্রুতিতে আমাকে পরবর্তীতে দুই দুইটি Domain কিনতে হয়েছিলো। কেননা Domain নেম পরিবর্তন করা যায় না অর্থাৎ যে Domain আপনি একবার ক্রয় করে ফেলবেন তা আর সংশোধন করতে পারবেন না। Domain পরিবর্তন করতে চাইলে আপনাকে পুনরায় নতুন করে Domain ক্রয় করতে হবে। এখন কথা বলা যাক Domain পছন্দ করার সময় কোন কোন বিষয়ের দিকে লক্ষ্য রাখবেন।

নিশ রিলেটেড ডোমেইন নেম

আপনি যদি কোন নির্দিষ্ট টপিক এর উপর ব্লগ বা ওয়েবসাইট তৈরি করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার নিশ রিলেটেড Domain বাছাই করুন। এখন প্রশ্ন উঠতে পারে নিশ কি? নিশ ব্লগিং বলতে বোঝায় কোন একটি নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর ব্লগিং করা।

যেমন, মনে করুন আপনি অনলাইনে উপার্জন এর উপর ব্লগিং করতে চান, অর্থাৎ যেখানে আপনি শুধুমাত্র অনলাইনে উপার্জনের উপর বিভিন্ন আর্টিকেল পাবলিশ করবেন। তাহলে আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটের Domain টি অবশ্যই অনলাইন আর্নিং রিলেটেড কিওয়ার্ড মধ্য থেকে হতে হবে।

আরো সহজভাবে বলতে গেলে, আপনি একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইট তৈরি করছেন যেখানে শুধু কবিতা লিখবেন তাহলে আপনার ওয়েবসাইটের Domain টি হতে পারে amarkobita.com বা pochonderkobita.com ইত্যাদি।

অর্থাৎ নিশ ব্লগিং হচ্ছে কোন একটি নিদৃষ্ট বিষয়ের উপর ব্লগ বা ওয়েবসাইট তৈরি করা আর নিশ রিলেটেড Domain হচ্ছে আপনার ব্লগের বিষয়বস্তুর সাথে মিল রেখে Domain নেম পছন্দ করা। সার্চ ইঞ্জিন রেংকিং এর ক্ষেত্রে নিশ রিলেটেড Domain অনেক অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কেননা নিশ রিলেটেড Domain সার্চ ইঞ্জিনে দ্রুত রেঙ্ক করে।

সহজেই মনে রাখা যায় এমন Domain

ডোমেইন কেনার আগে অবশ্যই খেয়াল রাখবেন যেন সেটি মনে রাখা সহজ হয়। কেননা সহজেই মনে করা Domain এর প্রতি ভিজিটরদের একটি পজিটিভ মানসিকতা কাজ করে। এবং সহজবোধ্য বা সহজে মনে রাখার মত Domain ব্যবহার করলে পরবর্তীতে ভিজিটর যখন আপনার নিশ রিলেটেড কোন তথ্যের সন্ধান করবে তখন খুব সহজেই আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগের নাম তার মনে পড়বে।

সংখ্যা এড়িয়ে চলুন

Domain নির্বাচনের ক্ষেত্রে অবশ্যই অবশ্যই সংখ্যা এড়িয়ে চলুন। কেননা সংখ্যা যুক্ত ডোমেইন মার্কেটিংয়ের ক্ষেত্রে যেমন বিরূপ প্রভাব ফেলে ঠিক তেমনি ভিজিটরদের ক্ষেত্রেও একটি বিরক্তির কারণ হয়ে দাড়ায়। এমন ডোমেইন পছন্দ করুন যেন সহজেই মানুষ সেটা মনে রাখতে পারে। আর সংখ্যা যুক্ত Domain মনে রাখাটাও দুষ্কর।

ট্রেডমার্ক থেকে বিরত থাকুন

Domain পছন্দ করার সময় অবশ্যই ট্রেডমার্ক এর দিকে নজর রাখুন। এমন কোন Domain নেম পছন্দ করবেন না যে নামে অন্য কোন কোম্পানির ট্রেডমার্ক রয়েছে। মনে করুন Prothomalo বাংলাদেশের খুবই জনপ্রিয় একটি সংবাদ মাধ্যম এই নামে তাদের ট্রেডমার্ক রয়েছে। এখন আপনি চিন্তা করলেন Prothomalo.com যেহেতু তাদের ডোমেইন তাহলে আমি Prothomalo.top ডোমেইন নেবো তাহলে আমার সাইটের দ্রুত পাবলিসিটি করা যাবে।

আপনি নিতে পারবেন ঠিকই, কিন্তু তার ফলাফল কি? একটা কথা সবসময় মনে রাখবেন একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইট একটি সম্পদ। এবং আপনি একটি সম্পদের মালিক হতে যাচ্ছেন। এটা আপনার ক্যারিয়ার। তিলে তিলে কষ্ট করে গড়ে তোলা একটি ওয়েবসাইট যখন স্বকীয়তা পাবে না তখন সেই কষ্ট রাখার জায়গা পাবেন না।

এখন আগের কোথায় ফিরে আসি, আপনার কষ্ট করে গড়ে তোলা Prothomalo.top ওয়েবসাইট, খুব ভালো একটা পজিশনে নিয়ে গেছেন ধীরে ধীরে আপনি নিজে ও পরিচিত মুখ হতে শুরু করেছেন। এখন আপনি চিন্তা করলেন আপনার এই ব্যাবসাকে নেক্সট লেভেলে নিয়ে যাবেন, সুতরাং আপনার এবং আপনার সাইটের জনপ্রিয়তা এর জন্য এটি অন্য সবার থেকে আলাদা রুপ দিতে হবে।

কিন্তু কেল্লা-ফতে, Prothomalo তো আগে থেকেই ট্রেডমার্ক এবং তার নিজস্ব স্বকীয়তা নিয়ে বসে আছে। এখন আপনি সেটা নিজের সম্পদ হিসাবে আর ট্রেডমার্ক করতে তো পারছেনই না, তার উপর আবার আপনি এবং আপনার সাইট যতই জনসম্মুখে আসছেন ততই মানুষ বলছে আপনি Prothomalo এর নাম চুরি করেছেন।

তখন এই ধরনের কথা গুলো কতখানি পীড়া এবং বিরিক্তির কারন হয়ে দাঁড়াবে একবার ভেবে দেখেছেন? সুতরাং ট্রেডমার্ক আছে এমন ডোমেইন নেম পছন্দ করা থেকে ১০০ হাত দূরে থাকুন।

Domain ব্লাকলিস্টেড কিনা চেক করুন

সাধারণত কোন কোম্পানির নিকট থেকে নতুন Domain ক্রয় করার পূর্বে Domain ব্লাকলিস্টেড কিনা তা চেক করার প্রয়োজন হয় না। তবে আপনি যদি কোন থার্ড পার্টি সাইট বা লোকাল ভাবে কোণ ব্যাক্তির নিকট থেকে Domain ক্রয় করতে যান তাহলে অবশ্যই উক্ত Domain ব্লাকলিস্টেড কিনা চেক করে নিন। ডোমেইন ব্লাকলিস্টেড কিনা তা চেক করতে এখানে ক্লিক করুন। কোন ডোমেইন যা গুগোল কোন প্রকার গাইডলাইন ভঙ্গ বা ব্লাক হ্যাট এসইও করার জন্য ব্লক করে দিয়েছে, এমন ডোমেইনে পরবর্তীতে Adsence Approve পাবেন না, বা বিজ্ঞাপন শো করবে না। তাই থার্ড পার্টি কোন সাইট থেকে ডোমেইন কেনার আগে সতর্কতা অবলম্বন করুন।

তাহলে চলুন এখন আলোচনা করা যাক, ডোমেইন কেনার আগে কোন কোন বিষয়ের ‍দিকে লক্ষ্য রাখবেন।

ডোমেইন কেনার আগে বিবেচ্য বিষয় সমুহ কি কি?

ডোমেইন কেনার আগে কয়েকটি বিষয় অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা উচিত। অর্থাৎ আপনি আপনার পছন্দকৃত Domain সরাসরি রেজিস্টার কৃত কোন ওয়েবসাইট থেকে ক্রয় করুন অথবা কোন রিসেলার এর কাছ থেকে ক্রয় করুন তা কেনার পূর্বে অবশ্যই নিম্নোক্ত বিষয়গুলো বিবেচনা করে নিবেন।

Domain Full Control

ডোমেইন কেনার আগে উক্ত ওয়েবসাইট বা রিসেলার এর সাথে যোগাযোগ করবেন। কিছু কিছু ওয়েবসাইট রয়েছে যারা Domain এর সম্পূর্ণ কন্ট্রোল এক্সেস দেয় না। যার দরুন যেকোনো ধরনের খুঁটিনাটি সমস্যার জন্য তাদের কাস্টমার হেল্পলাইন এ যোগাযোগ করতে হয়।

Domain ট্র্যান্সফার

Domain ট্র্যান্সফার খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। আপনি যখন দেখবেন আপনার Domain বিক্রেতা কোম্পানি আপনাকে যে রূপ সুযোগ সুবিধা দিচ্ছে তার থেকে অনেক বেশি সুযোগ-সুবিধা অন্য কোন কোম্পানি প্রদান করছে। তখন আপনি আপনার ডোমেইনটি উক্ত কোম্পানিতে ট্রান্সফার করে নিতে পারবেন।

তবে সকল কোম্পানি আপনাকে এই সুবিধা প্রদান করবে না। আবার ট্রান্সফারের সুবিধা প্রদান করলেও সেটা আপনি নিজেই ট্রানস্ফার করতে পারবেন নাকি তাদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে এ বিষয়ে জেনে নিন। আবার ট্রানস্ফার করতে গেলে তাদের অতিরিক্ত কোন চার্জ প্রদান করতে হবে কিনা সে বিষয়েও জেনে নিন।

এ বিষয়ে আপনাকে একটি উদাহরণ দেওয়া যেতে পারে, মার্কেটে বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় কোম্পানি রয়েছে, সেখান থেকে আপনি অন্যত্র নিজে নিজেই Domain ট্রান্সফার করতে পারবেন না অর্থাৎ ট্রান্সফারের পূর্বে তাদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে। অতঃপর তারা আপনাকে ট্রানস্ফার অথরাইজেশন কোড প্রদান করবে। অতঃপর আপনি Domain ট্রান্সফার করতে পারবেন। আবার কিছু কিছু কোম্পানি রয়েছে যারা একদমই Domain ট্রান্সফার করার সুবিধা প্রদান করে না। তবে কিছু কিছু কোম্পানি রয়েছে যেখান থেকে আপনি যে কোন সময় নিজের ইচ্ছা অনুযায়ী আপনার Domain/ডোমেইন অন্য কোম্পানিতে ট্রান্সফার করে নিতে পারবেন।

সুতরাং ডোমেইন কেনার আগে অবশ্যই এই বিষয়ে সতর্ক থাকুন।

Who.is Protection সুবিধা

ডোমেইন কেনার আগে যে যে বিষয় গুলো বিবেচনা করবেন তার মধ্যে খুবই গুরুত্বপূর্ন Who.is সুবিধা।

Who.is এমন একটি ওয়েবসাইট যেখানে আপনি যে কোন Domain এর মালিক কে? মালিক এর ঠিকানা এবং মালিকের ইমেইল নাম্বার দেখতে পারবেন। যা আপনার প্রাইভেসির জন্য সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। তবে বিভিন্ন ডোমেইন বিক্রেতা কোম্পানি who.is Protection সুবিধা প্রদান করে থাকে। সুতরাং Domain ক্রয় করার পূর্বে অবশ্যই জেনে নিন যে উক্ত কোম্পানি who.is Protection সুবিধা প্রদান করে কিনা আর প্রদান করলেও তারা কিরূপ চার্জ গ্রহণ করে।

উদাহরণস্বরূপ বলা যেতে পারে, আমাদের দেশের Dianahost কোম্পানি মাত্র বাৎসরিক 300 টাকার বিনিময়ে who.is Protection সুবিধা প্রদান করে থাকে। অন্যদিকে Bluehost বা Hostgator এর মতো বড় বড় কোম্পানিতে who.is Protection এর জন্য বাৎসরিক ২০০০ টাকা প্রদান করতে হয়। আবার আপনি যদি Namecheap বা Dreamhost থেকে Domain ক্রয় করেন তাহলে তারা who.is Protection সুবিধা আজীবনের জন্য ফ্রিতে প্রদান করে থাকে।

সুতরাং বুঝতেই পারছেন ডোমেইন কেনার আগে who.is Protection কতটা গুরুত্বপূর্ন।

SSL Certificate সুবিধা

আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটে যদি SSL Certificate না থাকে তাহলে সেটা ব্রাউজার এ http অর্থাৎ Not secure দেখাবে। অর্থাৎ কোন ভিজিটর যখন আপনার সাইটটি ব্রাউজ করবে তখন ব্রাউজারে Domain এর পাশে Not Secure লেখা থাকবে অর্থাৎ এখানে ভিজিটরের কোন তথ্য সুরক্ষিত নয়। এবং আপনি যখন আপনার সাইটে SSL Certificate যুক্ত করবেন তখন সেটা https এ কনভার্ট হবে এবং ব্রাউজারে Domain এর পাশে Secure লেখা আসবে। অর্থাৎ ভিজিটরদের তথ্য উক্ত সাইটে Secured

এই SSL Certificate বিভিন্ন কোম্পানি বিভিন্ন মূল্য প্রদান করে থাকে। সুতরাং Domain ক্রয় করার পূর্বে দেখে নিন যে উক্ত কোম্পানিতে SSL Certificate এর মূল্য কিরূপ। উদাহরণস্বরূপ বলতে গেলে, বেশিরভাগ কোম্পানিগুলোতে সর্বনিম্ন Positive SSL Certificate এর মূল্য বাৎসরিক ২০ থেকে ২৫ ডলার পর্যন্ত। কিন্তু Namecheap থেকে বাৎসরিক মাত্র 5 ডলার এর বিনিময়ে Positive SSL Certificate পেয়ে যাবেন।

তবে আপনি যদি আপনার সাইট ক্লাউড ফ্লেয়ারে যুক্ত করেন তাহলে সারাজীবন ফ্রি SSL Certificate এর সুবিধা পাবেন। সুতরাং ডোমেইন কেনার আগে এই অপশনটি আপনি বিবেচনায় নাও রাখতে পারেন।

Domain/ডোমেইন লক অপশন

ডোমেইন কেনার আগে জেনে নিন উক্ত Domain কোম্পানি আপনাকে Domain লক করার অপশন দেয় কিনা। তবে বেশিরভাগ কোম্পানি এই অপশন দিয়ে থাকে। তবুও ক্রয় করার পূর্বে জেনে নেওয়া ভালো।

ডোমেইন কেনার আগে বানান লক্ষ্য করুন

ডোমেইন কেনার আগে আপনার পছন্দের নাম গুলো দিয়ে সার্চ দিচ্ছেন আর দেখছেন কোন ডোমেইনটা available আছে। আকস্মিক ভাবে আপনি একটা available পেয়ে গেলেন এবং সাথে সাথে কিনে ফেললেন।

এমন কাজ কখনো করবেন না। Domain রেজিস্টার করার পূর্বে বার বার বানান লক্ষ্য করুন। কারন ভুল বানানের Domain অর্থের অপচয় ছাড়া আর কিছুই না। কেননা আপনি ভুল বানানের Domain না পারবেন সংশোধন করতে আর না পারবেন কারো নিকট বিক্রয় করতে। অর্থাৎ আপনার সম্পূর্ণ অর্থই জলে।

সুতরাং ডোমেইন কেনার আগে অবশ্যই উপরোক্ত বিষয় গুলো যথাযথভাবে বিবেচনা করুন। এবং অতিরিক্ত যে কোন তথ্যের জন্য আমাদের ফেসবুক পেজে যোগাযোগ করুন। ধন্যবাদ।

Share this

16 thoughts on “ডোমেইন কি? ডোমেইন কেনার আগে কোন বিষয় গুলো লক্ষ্য রাখবেন?”

    • আপনার মূল্যবান মন্তব্যের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।
      আপনি যদি wordpress.com এর কথা বলে থাকেন, তাহলে, গুগলে রেংক করা যাবে অবশ্যই কিন্তু অ্যাডসেন্স এপ্রুভাল পাবেন না।
      কারণ wordpress.com অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রুভ হয়না। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে আমাদের ব্লগিং ধারাবাহিক পর্বের “ব্লগার এবং ওয়ার্ডপ্রেসের” পর্বটি দেখতে পারেন।

      Reply
  1. ভাই বিকাশে টাকা পরিশোধ করা যাবে ডোমেইন কেনার জন্য এমন সেরা ওয়েবসাইট কোনটা? আর সেখানে কি প্রথম বছরের পর থেকে পরবর্তী বছরগুলোতে ফি ক্রমাগত বাড়তেই থাকে, নাকি একই থাকে একটু জানাবেন, প্লিজ। (addnservers.com নামের একটি ওয়েবসাইটে দেখলাম, প্রথম বছর ডোমেইনের দাম এক রকম, ২ বছর আরেকরকম, ৩য় বছর আরো বেশি… এভাবে বাড়তেই আছে….)

    Reply
    • আপনার মূল্যবান মতামতের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।
      আপনি Dianahost থেকে নিতে পারেন। এটা বাংলাদেশী ডোমেইন এবং হোস্টিং বিক্রেতা কোম্পানি। দাম নিয়ে এমন করার রেকর্ড নেই আমার জানা মতে।
      তারা DNS Management এর ফুল কন্ট্রোল দেয়। আমার নিজের ও ২ টা ডোমেইন তাদের কাছ থেকে নেওয়া। তারা মাত্র ৩০০ টাকায় who.is Protection ও দেয়।
      কিন্তু Dianahost থেকে অন্য কোন কোম্পানিতে সরাসরি ডোমেইন ট্রান্সফার করতে করা যায় না। ডোমেইন ট্রান্সফার এর ক্ষেত্রে তাদের লাইভ চ্যাটে নক করলে তারা Domain Transfer Authorization code পাঠিয়ে দেবে। তারপর ট্রান্সফার করতে পারবেন।
      বাংলাদেশী কোম্পানি হিসাবে তাদের সার্ভিসে আমি যথেষ্ট সন্তুষ্ট।
      তবে আপনি যদি মাস্টার কার্ড ম্যানেজ করে কিনতে পারেন, তাহলে আমি ডোমেইন এর জন্য Namecheap suggest করবো।
      তাদের কাছে থেকে Lifetime who.is Protection সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে পাবেন।

      Reply
      • একটু কনফিউশানে আছি ডোমেইন কেনা নিয়ে। আমি ব্লগারে টপ লেভেল ডোমেইন কিনতে চাই, কিন্তু মনে প্রশ্ন আসছে, গুগল কি টপ লেভেল ডোমেইনওয়ালা ব্লগার সাইটকে Self Hosted টপ লেভেল ডোমেইনওয়ালা ওয়ার্ডপ্রেস সাইটের মতোই মূল্যায়ন করবে? নাকি ব্লগার ফ্রি প্লাটফর্ম হওয়ায় সাধারণ .Blogspot.com সাব ডোমেইন এর মতোই আমার টপলেভেল ডোমেইনকে দেখেও নাক শিটকাবে?

        Reply
        • ভাই মূলকথা হলো গুগোল কোন মানুষ নয়, সেটা একটা রোবট। তাই তার কাছে ছোট-বড় বলে কিছুই নেই।
          আর গুগলের কাছে ব্লগারের ওয়েবসাইট এবং ওয়ার্ডপ্রেস এর ওয়েবসাইট এর মধ্যে কোন পার্থক্য নেই।
          গুগোল শুধু চেনে কনটেন্ট। আপনার কনটেন্ট ভালো হলে ওরকম হাজারটা ওয়ার্ডপ্রেস সাইটকে টেক্কা দেবার ক্ষমতা রাখবে আপনার ব্লগার এর সাইট।
          আর যদি দাম দেওয়ার প্রশ্নই আসে, তাহলেতো গুগোল ব্লগার এর সাইট গুলোকেই টপে রাখবে, কারণ ব্লগার তো গুগলের আপনা লোক।
          ওয়েবসাইটকে একটি প্রফেশনাল লুক দিতে ডোমেইন এর বিকল্প নেই। আপনি নির্দ্বিধায় ডোমেইন কিনতে পারেন। এবং মূল ফোকাস আপনার কন্টেন্টে দিন।
          প্রচুর সাকসেসফুল ব্লগার আছেন, যারা এখন পর্যন্ত ব্লগার থেকে ওয়ার্ডপ্রেস বা অন্য কোন প্লাটফর্মে মুভ করেনি।
          সুতরাং লক্ষ্য এবং এম্বিশন থাকলে কাজে লেগে পড়ুন ইনশাল্লাহ সফল হবেন।

          Reply
    • বাংলাদেশে Dianahost থেকে Single Domain এর জন্য Positive SSL ১৯৯৯ টাকা। যা আপনি Namecheap এ ৫০০ থেকে ৬০০ এর মধ্যে পেয়ে যাবেন।
      তবে সাধারণ ব্লগ বা ওয়েবসাইটের জন্য Cloudflare এর মাধ্যমে ফ্রি SSL ও ব্যবহার করতে পারেন। কিন্তু আপনার যদি ecommerce সাইট হয় তাহলে অবশ্যই SSL Certificate ক্রয় করবেন।

      Reply
      • আমি কোরা থেকে আপনার সাইটের খোঁজ পেয়েছি। ডোমেন কেনার ১ বোছর পর রিনিউ করার প্রসেসটা কি বলবেন? ডায়ানাহোস্টে ১ বছর মান ৩৬৫ দিনের মাঝে টাকা পরিশোধ না করলে এরপর আর সুযোগ দিবে কিনা, নাকি ডাইরেক দাম বাড়িয়ে দেবে খুলে বলুম প্লিজ্জজ

        Reply
        • আপনার মূল্যবান মতামতের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। ♥️
          ডোমেইন রিনিউ করার প্রসেস টা খুবই সহজ। আপনি ডায়ানা’হোস্টের ড্যাশবোর্ড এ রিনিউ করার অপশন পেয়ে যাবেন। তবে তারা রিনিউ না করলে এক বছরের বেশি সময় দেয় কিনা এ বিষয়ে আমার সঠিক জানা নেই।
          এবং আমি যতদূর জানি dianahost-bd রিনিউ করার সময় অতিরিক্ত মূল্য বৃদ্ধি করে না। তাদের অন্যান্য গ্রাহকদের নিকট থেকেও এমন কোন তথ্য পাইনি।
          যদিও আমি নিজেই dianahost-bd এর একজন গ্রাহক। তাদের নিকট থেকে ডোমেইন ক্রয় করেছি কিন্তু এখনো রিনিউ করার সময় আসেনি।
          বাংলাদেশের মধ্যে তাদের গ্রাহক সেবা আমার খুবই ভালো লেগেছে। আপনার নিকট যদি ইন্টারন্যাশনাল ট্রানজেকশন এর কোন সুযোগ না থাকে তাহলে dianahost.com থেকে ডোমেইন ক্রয় করতে পারেন তবে যদি আপনার নিকট ইন্টারন্যাশনাল ট্রানজেকশন এর সুযোগ থাকে তাহলে আমি বলবো অবশ্যই Namecheap থেকে ডোমেইন ক্রয় করুন।

          Reply

Leave a Comment